শুরু করছি আল্লাহ্‌র নামে যিনি পরম করুনাময় অতি দয়ালু, মেহেরবান ও ক্ষমাশীল

৯ম এবং ১০ম সপ্তাহ: কেমন কাটবে আপনার গর্ভাবস্থার প্রত্যেকটি সপ্তাহ

সন্তান সৎ ও নেক হওয়ার অন্যতম শর্ত হচ্ছে, সন্তান মায়ের গর্ভে থাকা অবস্থা থেকেই কিছু বিধিমালা মেনে চলা। সন্তান যখন মায়ের গর্ভে থাকে, তখন ভ্রুণ অবস্থা থেকে মায়ের যাবতীয় আমল ও আখলাক গর্ভে থাকা সন্তানের ওপর বিশেষ প্রভাব বিস্তার করে। তাই এক্ষেত্রে গর্ভবতী মায়ের প্রধান কর্তব্য হচ্ছে, গোনাহ ও আল্লাহর নাফরমানি থেকে নিজেকে বিরত রাখা। আর বাবার দায়িত্ব হচ্ছে, স্ত্রী-সন্তানের জন্য হালালভাবে উপার্জিত সম্পদ দিয়ে পরিবারের ব্যয় বহন করা।
এ ছাড়া আরও কিছু পালনীয় বিষয় হলো
১. সন্তান গর্ভে থাকা অবস্থায় তার মঙ্গলকামনায় বেশি বেশি দোয়া করা ও আল্লাহর রহমত কামনা করা।
২. প্রতিদিন পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা।
৩. প্রতিদিন ফজরের নামাজের পর এবং রাতে ঘুমানোর পূর্বে ১১ বার সূরা ইখলাস পাঠ করা।
৪. প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যায় প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি দরূদ পাঠ করা।
৫. যদি সম্ভব হয় তাহলে প্রতিদিন সূরা ইয়াসিন তেলাওয়াত করা।
৬. দান-খয়রাত করা। মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করা।


বিঃ দ্রঃ ছেলে অথবা সবই আল্লাহর দান; আল্লাহ্‌ বলেনঃ “যাকে ইচ্ছা কন্যা-সন্তান এবং যাকে ইচ্ছা পুত্র সন্তান দান করেন। অথবা তাদেরকে দান করেন পুত্র ও কন্যা উভয়ই এবং যাকে ইচ্ছা বন্ধ্যা করে দেন।” সূরা শুরাঃ ৪২/ ৪৯-৫০

সপ্তাহ নয় এবং দশে আপনার শিশুর ভ্রূণ আরো বৃদ্ধি পেতে থাকে । তার পরিপাক নালীর এবং জননাঙ্গ সৃষ্টি হতে শুরু করে এবং মেরুদণ্ড প্রসারিত হতে থাকে । তার চোখ এবং চোখের পাতা আরো উন্নত হয় এবং তার ভ্রু হত্তয়া শুরু হয়। এইসময় আপনার শিশুর দৈর্ঘ্য ০.০৯ ইঞ্চি থেকে ১.২২ ইঞ্চি এবং শিশুর ওজন ১.৯৮ গ্রাম থেকে ৩.৯৬ গ্রাম হয়।

সপ্তাহ ৯
এইসময় আপনার শিশুর মাথা আরো ঋজু হয় এবং ঘাড় আরও উন্নত হতে থাকে । তার হৃদপিন্ড এখন প্রায় সম্পূর্ণরূপে বিকশিত হয়ে গেছে, চোখের পাতার গঠনও হয়ে গেছে । তার জোড়া লেগে থাকা হাত ও পায়ের আঙ্গুল আলাদা হয়ে গেছে, বাহুর হাড়ের বিকাশ হয়ে গেছে এবং তার হাত তার মুখমন্ডলী স্পর্শ করতে শুরু করেছে । এইসময় আল্ট্রাসাউন্ড চলাকালীন, আপনি আপনার শিশুর নড়াচড়া স্ক্রীণে দেখতে পারলেও আপনি এটা এখনি অনুভব করতে পারবেন না।

নবম সপ্তাহের জন্য পরামর্শ
আপনার জরায়ু এখন ক্রমশঃ বৃদ্ধি পাচ্ছে, এবং আপনার কটিরেখা পুরু হতে শুরু করেছে । তবে যতক্ষণ না আপনি আপনার গর্ভাবস্থার কথা কাউকে না বলছেন কেউ সেটা লক্ষ্য করতে পারবে না । আপনার এখনও সেরকম ওজন বৃদ্ধি হবেনা বিশেষত যদি আপনার ক্ষুধা, অম্বল, বদহজম, বমি বমি ভাব, বা খাদ্যের প্রতি অনিহা অব্যাহত থাকে । আপনার বমনোদ্রেককর HCG-এর মাত্রা এই সপ্তাহে সবথেকে বেশী থাকবে । সুখবর হলো, আগামী সপ্তাহে যখন আপনার হরমোনের মাত্রা স্থির হতে শুরু করবে আপনি অনেক ভালো বোধ করতে শুরু করবেন কিন্তু দুঃসংবাদ এই যে বর্তমান সপ্তাহটি আপনার সম্ভবত রুক্ষ হতে পারে । যদি আপনার প্রচুর বমি হয়, তাহলে নিজেকে নিরূদন বা ডিহাইড্রেশন থেকে বাঁচাতে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন । নবম সপ্তাহে আপনার জরায়ু আকার দ্বিগুণ হয়ে প্রায় একটি টেনিস বলের আকারের হয়ে যায় এবং আপনার নাভি নীচের এলাকা স্বাভাবিকের চেয়ে শক্ত হয়ে ওঠে ।

নবম সপ্তাহের জন্য যত্ন
এখন আপনার ক্যালসিয়ামযুক্ত খাদ্য, যেমন চিজ, সার্ডিন, এবং ব্রোকলি খাওয়া উচিৎ । আপনার ও আপনার শিশুর স্বাস্থ্যের জন্য এইধরণের খাদ্য গ্রহণ করা ভীষণ প্রয়োজনীয় । এই পর্যায়ে আপনি আপনার চুল এবং ত্বকের পরিবর্তন লক্ষ্য করা শুরু করবেন । আপনার চুল পুরু এবং চিকন অথবা পাতলা, এবং নিস্তেজ লাগতে পারে । আপনার হয়ত এই সপ্তাহে শরীরচর্চা করার ইচ্ছে না হতে পারে কিন্তু আপনার অল্প হাঁটাচলা করা উচিৎ — এতে আপনার খাদ্য হজম করতে সাহায্য করবে ।

সপ্তাহ ১০
আপনার বাচ্চা এখনও আকারে ক্ষুদ্র কিন্তু তার চেহারা এবং সক্রিয়তা একটি পূর্ণ গঠিত শিশুর মতই । তার বাহু ও পায়ের আকার আরও দীর্ঘ হয়েছে এবং সে তার হাঁটু ও কনুই ভাঁজ করতে পারছে । আপনার শিশুর চোখের পাতা তার চোখ রক্ষা করার জন্য তৈরী হয়ে গেছে এবং আপনার নাভিরজ্জুর মাধ্যমে অক্সিজেন পেয়ে সে অনিয়মিত শ্বাস নিতেও শুরু করেছে, তার ত্বক পুরু হতে শুরু করেছে এবং লিঙ্গের গঠনও শুরু হয়েছে ।

দশম সপ্তাহের জন্য পরামর্শ
দশম সপ্তাহে আপনার জরায়ু একটি জাম্বুরার মাপের হয়ে যায় । আপনাকে দেখে এখনও বোঝা না গেলেও আপনার এই শারীরিক পরিবর্তনের জন্য এই মূহুর্তে আপনি ঢিলেঢালা পোষাকে আরোও স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবেন । আপনার ওজন এখন বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে কিন্তু যদি তা এখনও শুরু না হয়ে থাকে তাহলে চিন্তা করার কিছু নেই কারণ আগামী সপ্তাহগুলিতে আপনার শরীর আপনার সন্তানের স্বাস্থ্যের জন্য সঠিকভাবে বৃদ্ধি পেতে থাকবে । এই সপ্তাহেও হয়ত আপনি অবিরত ক্লান্ত এবং মনমরা বোধ করতে পারবেন, কিন্তু চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই কারণ এসব লক্ষণ কিছুদিনের মধ্যেই বন্ধ হয়ে যাবে ।

দশম সপ্তাহের জন্য যত্ন
গর্ভাবস্থার প্রথম কয়েক সপ্তাহে প্রজেস্টেরন আপনার স্তনে দুগ্ধ-গ্রন্থির বিকাশ ঘটায় এবং ইস্ট্রজেন দুগ্ধ-নালি তৈরী করতে সাহায্য করে । এখন আপনার স্তনের আয়তন আগের চেয়ে বেড়ে গেছে এবং স্তনের শিরা গাঢ় হতে শুরু করেছে । তাই আপনি চাইলে এখন থেকে প্রসূতি মায়েদের জন্য তৈরী অন্তর্বাস কেনা শুরু করতে পারেন ।  


তথ্যসূত্র: WebMD

Leave a Reply

Close Menu