শুরু করছি আল্লাহ্‌র নামে যিনি পরম করুনাময় অতি দয়ালু, মেহেরবান ও ক্ষমাশীল

১১তম এবং ১২তম সপ্তাহ: কেমন কাটবে আপনার গর্ভাবস্থার প্রত্যেকটি সপ্তাহ

সন্তান সৎ ও নেক হওয়ার অন্যতম শর্ত হচ্ছে, সন্তান মায়ের গর্ভে থাকা অবস্থা থেকেই কিছু বিধিমালা মেনে চলা। সন্তান যখন মায়ের গর্ভে থাকে, তখন ভ্রুণ অবস্থা থেকে মায়ের যাবতীয় আমল ও আখলাক গর্ভে থাকা সন্তানের ওপর বিশেষ প্রভাব বিস্তার করে। তাই এক্ষেত্রে গর্ভবতী মায়ের প্রধান কর্তব্য হচ্ছে, গোনাহ ও আল্লাহর নাফরমানি থেকে নিজেকে বিরত রাখা। আর বাবার দায়িত্ব হচ্ছে, স্ত্রী-সন্তানের জন্য হালালভাবে উপার্জিত সম্পদ দিয়ে পরিবারের ব্যয় বহন করা।
এ ছাড়া আরও কিছু পালনীয় বিষয় হলো
১. সন্তান গর্ভে থাকা অবস্থায় তার মঙ্গলকামনায় বেশি বেশি দোয়া করা ও আল্লাহর রহমত কামনা করা।
২. প্রতিদিন পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা।
৩. প্রতিদিন ফজরের নামাজের পর এবং রাতে ঘুমানোর পূর্বে ১১ বার সূরা ইখলাস পাঠ করা।
৪. প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যায় প্রিয় নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের প্রতি দরূদ পাঠ করা।
৫. যদি সম্ভব হয় তাহলে প্রতিদিন সূরা ইয়াসিন তেলাওয়াত করা।
৬. দান-খয়রাত করা। মানুষের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করা।


বিঃ দ্রঃ ছেলে অথবা সবই আল্লাহর দান; আল্লাহ্‌ বলেনঃ “যাকে ইচ্ছা কন্যা-সন্তান এবং যাকে ইচ্ছা পুত্র সন্তান দান করেন। অথবা তাদেরকে দান করেন পুত্র ও কন্যা উভয়ই এবং যাকে ইচ্ছা বন্ধ্যা করে দেন।” সূরা শুরাঃ ৪২/ ৪৯-৫০

আপনি কি জানেন এখন আপনার শিশু পানির নীচে শ্বাস প্রশ্বাস নিতে পারে ? হ্যাঁ এই ১১ ও ১২ সপ্তাহগুলিতে আপনার ভ্রূণ অল্প পরিমাণে অ্যামনিয়োটিক তরল শ্বসন করতে শুরু করে যা আপনার শিশুর ফুসফুসের বৃদ্ধি এবং বিকাশে সাহায্য করে। এছাড়াও এই সপ্তাহগুলিতে আপনার শিশুর কানের পাতা তার মাথার পাশে গজিয়ে উঠছে । এই পর্যায়ে আপনার শিশুর পেশী তৈরী হতে শুরু করেছে এবং সে হাত পা ছুড়তে পারছে ।

আপনার শিশুর প্রতিক্রিয়া আন্দোলিত হতে শুরু করে এইসময় । তাই আপনি যখন আপনার পেটের উপর হাত রাখবেন সে সম্ভবত নড়াচড়া করে উঠবে যদিও সেটা আপনি এতো তাড়াতাড়ি অনুভব করতে পারবেন না । এখন সে তার হাতের মুঠি খুলতে এবং বন্ধ করতে পারবে তার পায়ের আঙ্গুল ভাঁজ করতে পারবে এবং লাথি মারতে পারবে ।

সপ্তাহ ১১
এই সপ্তাহে আপনার শিশুর বৃদ্ধি ক্রমবর্ধমান থাকে । আপনার ডাক্তার এখন একটি ডপলার স্টেথিস্কপ্ ব্যবহার করে আপনার শিশুর দ্রুত হৃদস্পন্দন শুনতে পারবেন । আপনার শিশুর লিঙ্গ গঠন এখনও হয়ে চলেছে কিন্তু আলট্রাসাউন্ডের দ্বারা এখন তা নির্ধারণ করা যাবে না । শিশুর শরীরের সব অঙ্গ ও শারীরিক কাঠামো ক্রমশঃ গঠিত হচ্ছে এবং অঙ্গসঞ্চালন শুরু হচ্ছে । তার দৈর্ঘ্য এখন প্রায় ২ ইঞ্চি এবং সে দীর্ঘশ্বাস নিতে পারে, শরীর প্রসারিত করতে পারেতার মাথা নাড়াতে পারে এবং তার বুড়ো আঙুল চুষতে পারছে ।

একাদশ সপ্তাহের জন্য পরামর্শ
গর্ভাবস্থার সময় আপনার হরমোনের ভাল এবং খারাপ দুটো প্রভাবই আপনি লক্ষ্য করতে পারবেন । যেমন আপনার চুল হাত এবং পায়ের আঙ্গুল দ্রুত বাড়তে থাকবে আবার অন্যদিকে আপনার ত্বক তৈলাক্ত এবং ব্রণ প্রবন হয়ে উঠতে পারে । এখন আপনার শরীরের বিস্তার আপনি ভিতরে এবং বাইরে দুদিকেই খেয়াল করতে পারেন । আগামী দশ সপ্তাহে আপনার এবং আপনার শিশুর দ্রুত বৃদ্ধি হতে থাকবে । আপনার এখন অনেক পানিপান করার প্রয়োজন হবে কারণ আপনার শরীর এখন প্রচুর পরিমাণে রক্ত, ঘাম, তেল এবং অ্যামনিয়োটিক তরল উত্পাদন করবে । আপনার এখন সবসময় নিজেকে খুব তৃষ্ণার্ত মনে হতে পারে । তাই আপনার শরীরে তরলের মাত্রা বজায় রাখার জন্য এখন আপনি যেখানেই যান না কেন আপনার সাথে একটি পানির বোতল বহন করুন । প্রচুর পরিমাণে পানি ও দুধ পান করুন কিন্তু কার্বনেটেড পানীয় থেকে এখন নিজেকে দূরে রাখাই ভালো ।

একাদশ সপ্তাহের জন্য যত্ন
গর্ভাবস্থার এই নয় মাসে অন্তত একবার আপনার ডেন্টিস্টের সাথে দেখা করুন । দৈনন্দিন ব্রাশ এবং ফ্লস করুন এবং আপনার দাঁত সুস্থ রাখার জন্য ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট খান । আপনার গর্ভাবস্থার হরমোন এবং বর্ধিত রক্ত ​​ভলিউমের জন্য এখন আপনার মাড়ি থেকে রক্ত ​​ঝরতে পারে । যদি তা হয় তাহলে একটি নরম টুথব্রাশ ব্যবহার করুন । আপনার এবং আপনার ক্রমবর্ধমান শিশুর অপরিহার্য পুষ্টির জন্য এখন আপনাকে ফোলেট, ফাইবার এবং আয়রনযুক্ত খাবার যেমন পেয়াঁজকলি ইত্যাদি খেতে হবে । আপনার শরীরে ক্যালসিয়াম সঠিক মাত্রায় বৃদ্ধি পাওয়াতে হলে আপনার ডুমুরজাতীয় খাদ্য খেতে হবে ।

সপ্তাহ ১২
এই সপ্তাহে আপনার শিশুর পায়ের আঙুল থেকে দাঁত – শরীরের সমস্ত অংশ ক্রমশঃ বাড়তে থাকবে । সে আগামী দিনগুলিতেও এইভাবে বাড়তে থাকবে, বড় হতে থাকবে এবং শক্তি সঞ্চয় করতে থাকবে । এই সপ্তাহের শেষের দিকে আপনার গর্ভপাত হওয়ার ঝুঁকি অনেকটাই কমে যাবে । তার দৈর্ঘ্য এখন প্রায় ৩ ইঞ্চি (গোড়ালি থেকে মাথার পরিমাপ) এবং ওজন প্রায় ১৪.১৭ গ্রাম ।

দ্বাদশ সপ্তাহের জন্য পরামর্শ
আপনি আগামী কয়েক সপ্তাহে অনেক বেশী সক্রিয় বোধ করবেন । আপনার ওজন এখন ৪০০ থেকে ৭০০ গ্রাম বেশী হবে । দ্বাদশ সপ্তাহে আপনার পেটের পেশী ঢিলে হতে থাকে যার ফলে আপনার মল শক্ত এবং শুষ্ক হয়ে যেতে পারে এবং আপনার গ্যাসের সমস্যা হতে পারে । আপনার জরায়ু এখন আপনার শ্রোণীচক্রের মধ্যে মাপসইভাবে অবস্থান করবার জন্য সাধারণ সাইজের থেকে অনেক বড় হয়ে গেছে । যদিও এখনও সেটা অস্বস্তিকর ভাবে আপনার পেটের মধ্যে ঠেলাঠেলি করা শুরু করেনি । আপনার হৃদস্পন্দন আপনার শরীরের ​​অতিরিক্ত রক্ত প্রবাহের কারণে দ্রুত হয়ে যেতে পারে । এখন আপনার ক্রমবর্ধমান জরায়ুকে জায়গা করে দিতে আপনার নিতম্ব চওড়া হতে শুরু করেছে ।

দ্বাদশ সপ্তাহের জন্য যত্ন
এখন আপনি আপনার শরীরের স্ট্রেচ মার্কস সম্পর্কে বিন্দুমাত্র চিন্তা করবেন না । গর্ভাবস্থায় বেশীর ভাগ মহিলাদেরই স্তন,পেট, কোমর বা নিতম্বে এমন চিহ্ন হয় যা সাধারণত গর্ভাবস্থার পরে মিলিয়ে যায় । নির্মাতারা যতোই দাবী করুন না কেন কোন ক্রীম বা তেলে এই দাগ কমে না । আপনার শরীরে স্ট্রেচ মার্কস কতটা হবে তা আপনার ত্বক এর প্রাকৃতিক স্থিতিস্থাপকতার উপর নির্ভর করে ।

তথ্যসূত্র: WebMD

Leave a Reply

Close Menu