04/07/2020 By Ontor Bin Aiyub Madbor 0

আল্লাহ্‌ তা’আলার ২৯টি উপদেশ

১. সূরা আলাক্বঃ ৯৬ আয়াতঃ ১-৫

পাঠ করুন আপনার পালনকর্তার নামে যিনি সৃষ্টি করেছেন,সৃষ্টি করেছেন মানুষকে জমাট রক্ত থেকে। পাঠ করুন, আপনার পালনকর্তা মহা দয়ালু,যিনি কলমের সাহায্যে শিক্ষা দিয়েছেন,,শিক্ষা দিয়েছেন মানুষকে যা সে জানত না।


২. সূরা হিজরঃ ১৫ আয়াতঃ ৯৯

এবং পালনকর্তার এবাদত করুন, যে পর্যন্ত আপনার কাছে নিশ্চিত কথা না আসে।


৩. সূরা যারিয়াতঃ ১৫ আয়াতঃ ৯৯

আমার এবাদত করার জন্যই আমি মানব ও জিন জাতি সৃষ্টি করেছি।


৪. সূরা আন নাহলঃ ১৬ আয়াতঃ ৩৬

আল্লাহ্‌র ইবাদত করার ও তাগুতকে বর্জন করার নির্দেশ দেয়ার জন্য আমি তো প্রত্যেক জাতির মধ্যেই রাসূল পাঠিয়েছি।


৫. সূরা আন নিসা, আয়াতঃ ৮০

যে কেহ রাসূলের আনুগত্য করল সে তো আল্লাহরই আনুগত্য করলো।


৬. সূরা আল ইমরান, আয়াতঃ ৩১

বলঃ তোমরা যদি আল্লাহকে ভালবাস তাহলে আমার অনুসরণ করো, আল্লাহ্‌ তোমাদেরকে ভালবাসবেন এবং তোমাদের অপরাধ ক্ষমা করে দিবেন।


৭. সূরা হাশর, আয়াতঃ ৭

রসূল তোমাদেরকে যা দেন, তা গ্রহণ কর এবং যা নিষেধ করেন, তা থেকে বিরত থাক এবং আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ কঠোর শাস্তিদাতা।


৮. সূরা যুমার, আয়াতঃ ৯

যে ব্যক্তি রাত্রিকালে সেজদার মাধ্যমে অথবা দাঁড়িয়ে এবাদত করে, পরকালের আশংকা রাখে এবং তার পালনকর্তার রহমত প্রত্যাশা করে, সে কি তার সমান, যে এরূপ করে না; বলুন, যারা জানে এবং যারা জানে না; তারা কি সমান হতে পারে? চিন্তা-ভাবনা কেবল তারাই করে, যারা বুদ্ধিমান।


৯. সূরা ফাতির, আয়াতঃ ১৯-২২

দৃষ্টিমান ও দৃষ্টিহীন সমান নয়।, সমান নয় অন্ধকার ও আলো। সমান নয় ছায়া ও তপ্তরোদ। আরও সমান নয় জীবিত ও মৃত। আল্লাহ শ্রবণ করান যাকে ইচ্ছা। আপনি কবরে শায়িতদেরকে শুনাতে সক্ষম নন। আপনি তো কেবল একজন সতর্ককারী। আমি আপনাকে সত্যধর্মসহ পাঠিয়েছি সংবাদদাতা ও সতর্ককারীরূপে। এমন কোন সম্প্রদায় নেই যাতে সতর্ককারী আসেনি।


১০. সূরা মাইদাহ, আয়াতঃ ৬৭

হে রসূল, পৌছে দিন আপনার প্রতিপালকের পক্ষ থেকে আপনার প্রতি যা অবতীর্ণ হয়েছে। আর যদি আপনি এরূপ না করেন, তবে আপনি তাঁর পয়গাম কিছুই পৌছালেন না। আল্লাহ আপনাকে মানুষের কাছ থেকে রক্ষা করবেন। নিশ্চয় আল্লাহ কাফেরদেরকে পথ প্রদর্শন করেন না।


১১. সূরা মু’মিনুন, আয়াতঃ ৬২

আমি কাউকে তার সাধ্যাতীত দায়িত্ব অর্পন করি না। আমার এক কিতাব আছে, যা সত্য ব্যক্ত করে এবং তাদের প্রতি জুলুম করা হবে না।


১২. সূরা মুমিন, আয়াতঃ ৫৮

অন্ধ ও চক্ষুষ্মান সমান নয়, আর যারা বিশ্বাস স্থাপন করে ও সৎকর্ম করে এবং কুকর্মী। তোমরা অল্পই অনুধাবন করে থাক।


১৩. সূরা নুর, আয়াতঃ ৫২

যারা আল্লাহ ও তাঁর রসূলের আনুগত্য করে আল্লাহকে ভয় করে ও তাঁর শাস্তি থেকে বেঁচে থাকে তারাই কৃতকার্য।


১৪. সূরাঃ আন নুর, আয়াতঃ ৫৪

বলুনঃ আল্লাহর আনুগত্য কর এবং রসূলের আনুগত্য কর। অতঃপর যদি তোমরা মুখ ফিরিয়ে নাও, তবে তার উপর ন্যস্ত দায়িত্বের জন্যে সে দায়ী এবং তোমাদের উপর ন্যস্ত দায়িত্বের জন্যে তোমরা দায়ী। তোমরা যদি তাঁর আনুগত্য কর, তবে সৎ পথ পাবে। রসূলের দায়িত্ব তো কেবল সুস্পষ্টরূপে পৌছে দেয়া।