শুরু করছি আল্লাহ্‌র নামে যিনি পরম করুনাময় অতি দয়ালু, মেহেরবান ও ক্ষমাশীল
বইঃ আদর্শ রমণী
অধ্যায়ঃ ওজুহাত দূর কর

অধায়


প্রস্তুতি পর্যায়

অধ্যায়


স্বামী পছন্দ করার ভিত্তি

বিবাহের সময় হলে তাতে সম্মতি দাও। তোমার অভিভাবক তোমার জন্য দ্বীনদার যোগ্য যুবক বেছে নিলে খরবদার তা রদ করে দিও না।

নবী (সাঃ) বলেন, “তোমাদের নিকট যখন এমন ব্যক্তি (বিবাহের পয়গাম নিয়ে) আসে; যার দ্বীন ও চরিত্রে তোমরা মুগ্ধ, তখন তার সাথে (মেয়ের) বিবাহ দাও। যদি তা না কর, তাহলে পৃথিবীতে ফিতনা ও মহাফাসাদ সৃষ্টি হয়ে যাবে।”(সিলসিলাহ সহীহাহ ১০২২ নং)

তিনি আরো বলেন, “যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের উদ্দেশ্যে কিছু দান করে, কিছু দেওয়া হতে বিরত থাকে, কাউকে ভালবাসে অথবা ঘৃণা করে এবং তাঁরই সন্তুষ্টি লাভের কথা খেয়াল ক’রে বিবাহ দেয়, তার ঈমান পূর্ণাঙ্গ ঈমান।”(আহমাদ, হাকেম, বাইহাকি, সহীহ তিরমিযী ২০৪৬ নং)

বিবাহে সম্মতি দিতে কোন প্রকার সত্য অথবা মিথ্যা টাল-বাহানা করো না।

‘এখন পড়ছি, এখন আমি ছোট, আমাকে ভয় লাগছে, পরাধীনা হয়ে যাব’ ইত্যাদি বলে বিবাহ পিছিয়ে দেবে না।

অনেক মানুষ আছে, যারা ‘রাইট টাইমে ট্রেন ধরব’ বলে ঘড়ির দিকে তাকাতে তাকাতে ট্রেন ফেল ক’রে ফেলে। তুমিও তাদের মত হয়ো না।

Close Menu