Mon. Sep 23rd, 2019

মাদবর

কুরআন ও সুন্নাহর আলোকে, ইসলামকে জানি নিজের ভাষায়

চট করে কোন মন্তব্য করো না,কোন ফায়সালা করো না

চট করে কোন মন্তব্য করো না, কোন ফায়সালা করো না


ঘটনা পুরোপুরি না জেনে অথবা একতরফা শুনে চট করে কোন মন্তব্য করো না, কোন ফায়সালা করো না।

শুনলে অমুক তোমাকে গালি দিয়েছে, সমালোচনা বা গীবত করেছে, অমুক অমুকের প্রতি অত্যাচার করেছে, অমুক যালেম বা ইসলাম-বিরোধী অথবা সমাজ-বিরোধী, যাই শোনো না কেন, চট করে কোন মন্তব্য করে বসো না; যতক্ষণ না অপর পক্ষের নিকট থেকে অথবা সঠিক উৎস থেকে শোনা খবরের সত্যতা যাচাই করেছ।

অদৃশ্য ভাবে তোমার কোন ক্ষতি হলে না জেনে চট করে বলো না যে, এ কাজ অমুক করেছে বা অমুক ছাড়া এ কাজ কেউ করতে পারে না। কারণ, সত্য যদি তার বিপরীত হয়, তাহলে তাতে তোমার শত্রু বাড়বে, মর্যাদাহানি হবে।

মহান আল্লাহ বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِن جَاءكُمْ فَاسِقٌ بِنَبَأٍ فَتَبَيَّنُوا أَن تُصِيبُوا قَوْمًا بِجَهَالَةٍ فَتُصْبِحُوا عَلَى مَا فَعَلْتُمْ نَادِمِينَ

অর্থাৎ, মুমিনগণ! যদি কোন পাপাচারী ব্যক্তি তোমাদের কাছে কোন সংবাদ আনয়ন করে, তবে তোমরা পরীক্ষা করে দেখবে, যাতে অজ্ঞতাবশতঃ তোমরা কোন সম্প্রদায়ের ক্ষতিসাধনে প্রবৃত্ত না হও এবং পরে নিজেদের কৃতকর্মের জন্যে অনুতপ্ত না হও।(সূরা-হুজরাত-আয়াত ৬)

তিনি আরো বলেন,

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا اجْتَنِبُوا كَثِيرًا مِّنَ الظَّنِّ إِنَّ بَعْضَ الظَّنِّ إِثْمٌ وَلَا تَجَسَّسُوا وَلَا يَغْتَب بَّعْضُكُم بَعْضًا أَيُحِبُّ أَحَدُكُمْ أَن يَأْكُلَ لَحْمَ أَخِيهِ مَيْتًا فَكَرِهْتُمُوهُ وَاتَّقُوا اللَّهَ إِنَّ اللَّهَ تَوَّابٌ رَّحِيمٌ

অর্থাৎ, মুমিনগণ, তোমরা অনেক ধারণা থেকে বেঁচে থাক। নিশ্চয় কতক ধারণা গোনাহ। এবং গোপনীয় বিষয় সন্ধান করো না। তোমাদের কেউ যেন কারও পশ্চাতে নিন্দা না করে। তোমাদের কেউ কি তারা মৃত ভ্রাতার মাংস ভক্ষণ করা পছন্দ করবে? বস্তুতঃ তোমরা তো একে ঘৃণাই কর। আল্লাহকে ভয় কর। নিশ্চয় আল্লাহ তওবা কবুলকারী, পরম দয়ালু।(সূরা-হুজরাত-আয়াত ১২)

মহানবী (সাঃ) বিচারককে প্রতিপক্ষের বক্তব্য শোনার আগে কোন ফায়সালা দিতে নিষেধ করেছেন। (আবূ দাঊদ, তিরমিযী, ইবনে মাজাহ)

এক দম্পতি জঙ্গলের ধারে বাস করত। ছোট শিশু রেখে স্ত্রী মারা গেল। স্বামী কাজে গেলে শক্তিশালী পোষা কুকুর শিশুটিকে পাহারা দিত। একদিন কাজ থেকে ফিরে এসে দেখল, কুকুরটির মুখে রক্ত এবং সে বাইরে বসে অপেক্ষা করছে। ভাবল, সে তার ছেলেকে হত্যা করেছে। ফলে ক্ষোভে ফেটে পড়ে লাঠি দিয়ে তাকে হত্যা করে ফেলল। অতঃপর ঘরের ভিতরে গিয়ে দেখল, ছেলে বহাল তবীয়তে খেলা করছে এবং পাশে একটি নেকড়ে বাঘের লাশ পড়ে আছে। প্রকৃতত্ব না জানার আগে বিচার করে কত বড় সর্বনাশ করল সে!

এক সাহাবী দেখলেন, তার নব বিবাহিতা স্ত্রী তার ঘর ছেড়ে বাইরে বসে আছে। রাগে বর্শা তুলে আঘাত করতে গেলে স্ত্রী বলল, তাড়াতাড়ি করবেন না, ঘরের ভিতরে ঢুকে দেখুন। দেখল, তার বিছানায় বিরাট আকারের সাপ শুয়ে আছে! (মুসলিম, মিশকাত ৪১১৮)

অনেক সময় বিচার-বিবেচনা না করে মানুষ নিজের জীবনকে বিপন্ন করে তোলে।

অবশেষে হায়-পস্তানি ও লাঞ্ছনা ছাড়া আর কি থাকতে পারে?

Copyright © All rights reserved. | Newsphere by AF themes.